করোনা ভাইরাসঃ উৎপত্তি,লক্ষণ,প্রতিকার এবং সতর্কতা

করোনা ভাইরাসঃ উৎপত্তি,লক্ষণ,প্রতিকার এবং সতর্কতা সম্পর্কে আজকে আলোচনা করব।বর্তমানে  চীনসহ বিশ্বের কয়েকটি  দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে। যার ফলে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে দেশগুলোতে।১৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ শতাধিক হবে।  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্কতা জারি করেছে।ভাইরাসটি কিভাবে ছড়ায় ইত্যাদি বিষয় নিয়েই আলোচনা করব।

করোনা ভাইরাসঃ উৎপত্তি,লক্ষণ,প্রতিকার এবং সতর্কতা

করোনা ভাইরাসঃ উৎপত্তি,লক্ষণ,প্রতিকার এবং সতর্কতা ।ইতোমধ্যেই বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।আর আমরা চেষ্টা করব আপনাদের আরো বিস্তারিত জানাতে। আপনারা সাবধানতা অবলম্বন করে চলবেন।রক্ষা করার মালিক সৃষ্টিকর্তা।

১।করোনা ভাইরাস কী?

করোনা ভাইরাসটির আরেক নাম হলো ২০১৯এনসিওভি।এই  ভাইরাসটির অনেক রকম প্রজাতি আছে।প্রজাতি গুলোর মধ্যে  মাত্র ৭টি  সংক্রমিত হতে পারে মানুষের দেহে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন-

‘ ভাইরাসটি হয়তো মিউটেট করেছে মানুষের দেহকোষের ভেতরে।অর্থাৎ গঠন পরিবর্তন করে নতুন রূপ নিচ্ছে এবং সংখ্যাবৃদ্ধি করছে। এর ফলে আরো বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। ভাইরাসটি একজন মানুষের দেহ থেকে আরেকজন মানুষের দেহে ছড়াতে পারে।

করোনা ভাইরাস একটি ভয়ংকর ভাইরাস

করোনা ভাইরাসঃ উৎপত্তি,লক্ষণ,প্রতিকার এবং সতর্কতা দেখে নিন।এ ভাইরাস ভয়ংকর কারণ-

  • এই ভাইরাস মানুষের ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায়।
  •  শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমেই এটি একজনের দেহ থেকে অন্যজনের দেহে ছড়ায়।
  •  এ ভাইরাস ছড়ায় হাঁচি-কাশির মাধ্যমে।
  •  অরগ্যান ফেইলিওর বা দেহের বিভিন্ন প্রত্যঙ্গ বিকল হয়ে যায়।
  • নিউমোনিয়া এবং মৃত্যু ঘটারও আশঙ্কা রয়েছে।

এ পর্যন্ত আক্রান্তদের দুই শতাংশ মারা গেছে। হয়তো আরও মৃত্যু হতে পারে। তাই এ ভাইরাস ঠিক কতটুকু ভয়ংকর, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

২।করোনা ভাইরাস কিভাবে ছড়িয়েছে 

এ ভাইরাসের সূচনা মধ্য চীনের উহান শহর । ৩১ ডিসেম্বর  নিউমোনিয়ার মতো একটি রোগ ছড়াতে থাকে শহরে।তা  দেখে প্রথম চীনের কর্তৃপক্ষ সতর্ক করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে।তারপর ১১ জানুয়ারি ২০২০ প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। কীভাবে এর সংক্রমণ শুরু হয়েছিল, তা এখনও নিশ্চিত করে বলতে পারেরনি বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা বলেছে, সম্ভবত কোনও প্রাণী  উৎস ছিল। প্রাণী থেকেই ভাইরাসটি  মানুষের দেহে ঢুকেছে ।আর তারপর মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়েছে। উহান শহরে সামুদ্রিক একটি খাবারের কথা বলা হচ্ছে।যা থেকে ভাইরাসের উতপত্তি। শহরটির বাজারে গিয়েছিল এমন ব্যক্তিদের মধ্যে সংক্রমণ ঘটেছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।  বাজারটিতে বন্যপ্রাণী বেচাকেনা হতো অবৈধভাবে। আবার কিছু সামুদ্রিক প্রাণী বহন করতে পারে ভাইরাসটি। যেমন বেলুগা জাতীয় তিমি।

করোনা ভাইরাস ঃ লক্ষণ,প্রতিকার

করোনা ভাইরাসঃ উৎপত্তি,লক্ষণ,প্রতিকার এবং সতর্কতা নিয়ে আলোচনা করছি।ভাইরাস আক্রান্ত করেছে কিনা তার লক্ষণ রয়েছে।

  •  শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া
  •  জ্বর
  •  কাশি।

ভাইরাসটি শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে সময় লাগে পাঁচ দিন । প্রথম লক্ষণ হচ্ছে জ্বর। এক সপ্তাহের মধ্যে শ্বাসকষ্ট দেখা দেয় ।এইব লক্ষণ দেখা দিলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন।

৩।করোনা ভাইরাসের  চিকিৎসা

ভাইরাসটি নতুন হওয়াতে এখনই এর কোনও টিকা বা প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি।তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন-

  •  নিয়মিত হাত ভালোভাবে ধোয়া নিশ্চিত করতে হবে।
  • হাঁচি-কাশির সময় নাক-মুখ ঢেকে রাখুন।
  • ঠান্ডা  আক্রান্ত মানুষ থেকে দূরে থাকতে হবে।
  • বাইরে বের হলে মাস্ক পরে বের হবেন।

আপাতত বিজ্ঞানীরা প্রতিকার হিসেবে এ ভাইরাস বহনকারীদের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে বলছেন।

হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. গ্যাব্রিয়েল লিউং  বলেন, ‘আপনি যদি অসুস্থ হয়ে থাকেন তাহলে মুখোশ পরুন, আর নিজে অসুস্থ না হলেও, অন্যের সংস্পর্শ এড়াতে মুখোশ পরুন।’

Leave a Reply